খুঁজুন
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২ বৈশাখ, ১৪৩১

হোটেলে সেবার মান বাড়াতে দক্ষ জনবল ও সরকারের সহায়তা চান উদ্যোক্তারা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ৭:৫২ অপরাহ্ণ
হোটেলে সেবার মান বাড়াতে দক্ষ জনবল ও সরকারের সহায়তা চান উদ্যোক্তারা
whatsapp sharing button

দেশের হোটেল ও গেস্ট হাউসগুলোতে অতিথিদের সর্বোত্তম সেবা প্রদানে উন্নত হোটেল নির্মাণ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, সরকারের নীতি সহায়তার পাশাপাশি সেবার মান বাড়াতে দক্ষ জনবল বৃদ্ধি অত্যন্ত জরুরি বলে মনে করেন এই খাতের ব্যবসায়ীরা। পর্যাপ্ত দক্ষ জনবলের অভাবে হোটেলগুলোতে বিশ্বমানের সেবা প্রদান কিছুটা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলেও মনে করেন খাত সংশ্লিষ্টরা। এই ক্ষেত্রে দক্ষ জনবল তৈরির প্রক্রিয়া আরও জোরালো করার দাবি জানিয়েছেন তারা। এছাড়াও সরকারের সহায়তা পেলে দেশের অর্থনৈতিক অবদানে আরও শক্ত অবস্থান গড়ে তোলার সমূহ সম্ভাবনার কথাও জানান তারা।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) এফবিসিসিআই’র বোর্ড রুমে হোটেল ও গেস্ট হাউস বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির এক বৈঠকে এই খাতের ব্যবসায়ীরা বিষয়গুলো নিয়ে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরেন। দেশের অর্থনীতি বিবেচনায় মাধ্যমিক পর্যায় থেকেই বইয়ে পর্যটন শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করার আহ্বান জানান ব্যবসায়ীরা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, পর্যটন আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। আমাদের পর্যটন খাতকে আরও সমৃদ্ধ করতে সিলেট, সুনামগঞ্জ, রাঙামাটি, বান্দরবন, খাগড়াছড়িসহ দেশের সম্ভাবনাময় পর্যটন কেন্দ্রগুলোকেও কীভাবে আরও আধুনিক ও উন্নত করা যায়, সে ব্যাপারে কাজ করার ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করেন এফবিসিসিআই সভাপতি। এছাড়াও পর্যটন খাতের উন্নয়নে এফবিসিসিআই’র সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. আমিন হেলালী বলেন, পর্যটন শিল্পের জন্য দক্ষ জনবল তৈরির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রাখার সম্ভাবনা রয়েছে। এক্ষেত্রে পর্যটন এলাকাগুলোতে হোটেল ও সেবার মান আরও উন্নত করার তাগিদ দেন তিনি।

কমিটির ডিরেক্টর ইনচার্জ ও এফবিসিসিআই পরিচালক ফখরুস সালেহীন নাহিয়ান বলেন, পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে বড় হোটেল মোটেল নির্মাণের সময়ে উচ্চ ডিউটি দিয়ে নির্মাণ সামগ্রী আমদানি করতে হয়। যার ফলে হোটেলের খরচ অনেক বেড়ে যায়। হোটেল নির্মাণের ক্ষেত্রে শুল্কমুক্তভাবে গ্লাস, ফার্নিচার ইত্যাদি আমদানি করা গেলে স্বল্প খরচে পর্যটকদের সেবা দেওয়া সম্ভব হবে।

আরব আমিরাত, সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশে অনেক ব্র্যান্ডিং হয় উল্লেখ করে বাংলাদেশের পর্যটন খাতকে এগিয়ে নিতে অনুরূপভাবে ব্র্যান্ডিং বাংলাদেশ কর্মসূচি গ্রহণের উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। পাশাপাশি মেগা শপিংমল নির্মাণ, আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলার আয়োজনসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান তিনি।

পরিকল্পিত ও সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করলে পর্যটন খাত ভবিষ্যতে দেশের অর্থনীতিতে ৩০ শতাংশ ভূমিকা রাখতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সভায় সভাপতিত্ব করেন কমিটির চেয়ারম্যান ও সায়মন বিচ রিসোর্ট এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেদুর রহমান। তিনি বলেন, প্রতিটি জেলার নিজস্ব কিছু সংস্কৃতি আছে। হোটেলগুলোতে স্যুভেনির আকারে সেগুলো পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতে পারলে এ খাতের ব্যবসা আরও বাড়তে পারে। এছাড়া শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বা পাঁচতারকা হোটেলগুলোতে ভ্যাট ১৫ শতাংশ কমিয়ে ৮ শতাংশ করা হলে ভোক্তা বা পর্যটকরা উপকৃত হবে বলে জানান তিনি।

কমিটির কো-চেয়ারম্যান ও ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সভাপতি শিবলুল আজম কোরাইশী বলেন, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত ছড়িয়ে যেতে পারে পর্যটন শিল্প। একজন বাদাম বিক্রেতার মতো উদ্যোক্তাও ক্ষুদ্র বিনিয়োগ করে লাভবান হতে পারে এ খাতে। তাই এই খাত অগ্রাধিকার পাওয়ার দাবিদার। দেশের ঋতু বৈচিত্র্য কাজে লাগানোসহ ঢাকা ও দক্ষ জনবল তৈরিতে ঢাকা ও স্থানীয় পর্যায়ে প্রশিক্ষণ দরকার বলে জানান তিনি।

কো-চেয়ারম্যান ইরাদ আলি বলেন, হোটেলগুলোতে অ্যালকোহল আমদানির ক্ষেত্রে বিদেশ থেকে ৪০ ভাগ ও স্থানীয় পর্যায়ে ৬০ ভাগ আমদানি করতে হয়। যা আমাদের জন্য কষ্টকর। বিদেশ থেকে আরও বেশি আমদানির অনুমতি দেওয়া উচিৎ।

এফবিসিসিআইর পরিচালক ও হোটেল স্টার প্যাসিফিক এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফালাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে অভিযোগ করে জরিমানার টাকার একটা অংশ অভিযোগকারী পায়। এটির সুযোগ নিয়ে লাভবান হচ্ছে কুচক্রী মহল। যা ইন্ডাস্ট্রিকে ধ্বংস করছে।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইর পরিচালক হাফেজ হাজী হারুন অর রশীদ, সেরনিয়াবাত মঈন উদ্দিন আব্দুলাহ, মহাসচিব মো. আলমগীর, কমিটির কো-চেয়ারম্যানবৃন্দ ও সদস্যবৃন্দ।

উত্তরের কন্ঠ /এ,এস

বগুড়ায় বৃষ্টি চেয়ে কাঁদলেন মুসল্লিরা

জেলা প্রতিবেদক, বগুড়া
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১:১০ অপরাহ্ণ
বগুড়ায় বৃষ্টি চেয়ে কাঁদলেন মুসল্লিরা

তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন। তীব্র গরমে বৃষ্টি প্রত্যাশা করে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেছেন বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

বৃহঃবার সকাল ৯ ঘটিকার সময় দিকে ভবানীপুর মসজিদ প্রাঙ্গনে খোলা আকাশের নিচে এ নামাজের আয়োজন করেন স্থানীয় মুসল্লিরা।

এতে বিভিন্ন এলাকায় প্রায় শতাধিক মুসল্লি অংশ নেন। নামাজের ইমামতি করেন সাবেক সংসদ সদস্য মাওলানা শাহাদুজ্জামান। নামাজ শেষে বৃষ্টির আশায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এসময় মুসল্লিরা উল্টো হাতে কেঁদে কেঁদে বৃষ্টি প্রত্যাশায় দোয়া করেন।

স্থানীয়রা জানান, বৃষ্টির অভাবে জনজীবন অতিষ্ঠ, খাল-বিল, নদী-নালা শুকিয়ে চৌচির হয়ে গেছে। পানির অভাবে চাষাবাদও মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে মাঠের ফসল। এ কারণেই আল্লাহ তায়ালার দরবারে বৃষ্টি চেয়ে এলাকাবাসী খোলা মাঠে নামাজ আদায় ও দোয়ার আয়োজন করেন।

এছাড়াও উপজেলার শব্দলদিঘী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ও সদর উপজেলার গোদারপাড়ায় সকাল সাড়ে ৮ ঘটিকার সময় ইসতিকার সালাত আদায় করে স্থানীয়রা।

নওগার সাপাহারে বৃষ্টি চেয়ে কাঁদলেন মুসল্লিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাপাহার
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১:০৫ অপরাহ্ণ
নওগার সাপাহারে বৃষ্টি চেয়ে কাঁদলেন মুসল্লিরা

তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন। তীব্র গরমে বৃষ্টি প্রত্যাশা করে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেছেন সাপাহার উপজেলার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

বৃহঃবার সকাল ৯ ঘটিকার সময় সাপাহার শরফাতুল্লাহ ফাজিল মাদ্রাসার আয়োজনে মাদ্রাসা মাঠ প্রাঙ্গনে খোলা আকাশের নিচে এ নামাজ আদায় করেন স্থানীয় মুসল্লিরা।

এতে বিভিন্ন এলাকায় প্রায় শতাধিক মুসল্লি অংশ গ্রহণ করেন। ইমাম নামাজের মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে নামাজের নিয়ম-কানুন বলেন এরপর দুই রাকাত নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে দুই হাত তুলে প্রচন্ড গরম তীব্র তাবপ্রদাহ ও খরা থেকে রক্ষা পেতে বৃষ্টি প্রার্থনা করেন মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ দোয়া প্রার্থনা করেন সকলের চোখে জল ঝরে মোনাজাত ও ক্ষমাপ্রার্থনা করেন ইমাম ও মোসল্লীরা নামাজ শেষে বৃষ্টির আশায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এসময় মুসল্লিরা উল্টো হাতে কেঁদে কেঁদে বৃষ্টি প্রত্যাশায় দোয়া করেন।

নামাজে ইমামতি ও দোয়া পরিচালনা করেন সাপাহার সরফাতুল্লাহ ফাজিল মাদ্রাসার প্রভাষক ও হেফজুল বিভাগের প্রধান এবং সাপাহার মডেল মসজিদের সাবেক ইমাম মাওলানা ওমর ফারুক।

বৃষ্টির প্রার্থনায় বীরগঞ্জে ‘সালতুল ইস্তিসকার’ নামাজ আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২:৩৭ অপরাহ্ণ
বৃষ্টির প্রার্থনায় বীরগঞ্জে ‘সালতুল ইস্তিসকার’ নামাজ আদায়

সূর্যের আলোর প্রখরতা, তীব্র দাবদাহে মানুষ অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। হয়েছে আবহাওয়ার পালাবদল। তীব্র গরম থেকে মুক্তি পেতে দিনাজপুরের বীরগঞ্জের ভোগনগর ইউনিয়নের রহিম বখস্ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বৃষ্টির আশায় সালাতুল ইস্তেসকার নামাজ ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল ২০২৪) সকাল সাড়ে দশটার সময় ইস্তেসকার নামাজ অনুষ্টিত হয়। বীরগঞ্জ ফাজিল মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ মিরাজ রহমান নামাজে ইমামতি করেন। এতে শতাধীক মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। গত এক মাস আগেও বীরগঞ্জের যেখানে তাপমাত্রা ছিলো ২০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচে। মাস খানেক পরেই সেখানে বেড়ে দাড়িয়েছে ৪৩ এর কোঁঠায়।

তীব্র রোদ আর ভ্যাবসা গরমে অস্থির জন-জীবন। বৃষ্টি না হওয়া স্বস্তির নিশ্বাস নিতে পারছেন না সাধারণ মানুষ। এই গরমে দেখা দিয়েছে খড়তা। বৃষ্টি না হওয়ায় নষ্ট হচ্ছে জমির ফসল। অপর দিকে নষ্ট হচ্ছে গাছের ফল। কিছু অঞ্চলে পানির স্তর নেমে যাওয়ায় টিউবওয়েল থেকে ঠিকমত উঠছে না পানি।

ভোগনগর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান রাজিউর রহমান রাজু বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশে অনাবৃষ্টি ও তীব্র দাবদাহের কারনে জন-জীবন কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে। পশু-পাখী, গাছ-পালা সহ সকলের জন্য অত্যন্ত পানি প্রয়োজন হওয়া আমরা এলাকার যুবকরা মিলে সালাতুর ইস্তেসকার নামাজের আয়োজন করি।’

হাসিনুর ইসলাম বলেন, ‘আমরা এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে খোলা ময়দানে ইস্তেসকার নামাজ আদায় করেছি। অনাবৃষ্টির ফলে তীব্র গরমের কারণে শিশু, বৃদ্ধ, পশুপাখি সকলে কষ্টে জীবনযাপন করছে। রোজাদারদের অনেক কষ্ট হচ্ছে। গরমের কারণে বাচ্চারা পড়ালেখায় মন বসাতে পারছে না। বৃদ্ধরা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।’

হাফেজ মো: জাহেদুল ইসলাম বলেন, ‘রাসূল (সাঃ) অনাবৃষ্টি ও দূর্ভিক্ষের জন্য সাহাবীদের নিয়ে খোলা ময়দানে ইস্তেসকার সালাত আদায় করেছিলেন। নবী রাসূলের সুন্নাত কে আকড়ে ধরার জন্য বর্তমান বাংলাদেশে অনাবৃষ্টি দেখা দিয়েছে। আমরা খোলা মাঠে সালাতুল ইস্তেসকা নামাজ আদায় করেছি।’

সালাতুল ইস্তেসকার নামাজ ও বিশেষ মোনাজাতে উপস্থিত ছিলেন ভোগনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ এলাকার সকল মুসল্লিগণ।

নামাজ শেষে বৃষ্টির আশায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এ সময় মুসল্লিরা কাঁদতে কাঁদতে আল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে বীরগঞ্জ উপজেলাসহ পুরো বাংলাদেশে বৃষ্টি বর্ষণের জন্য দোয়া করেন।

"> ">
বগুড়ায় বৃষ্টি চেয়ে কাঁদলেন মুসল্লিরা নওগার সাপাহারে বৃষ্টি চেয়ে কাঁদলেন মুসল্লিরা বৃষ্টির প্রার্থনায় বীরগঞ্জে ‘সালতুল ইস্তিসকার’ নামাজ আদায় বগুড়ায় বৃষ্টির প্রত্যাশায় ইসতিকার নামাজ আদায় শেরপুরে প্রচন্ড তাপদাহে কৃষকের মৃত্যু বগুড়ায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু বোচাগঞ্জে সড়ক নির্মান কাজে ধীরগতি দুর্ঘটনা আর ধুলোবালুতে অতিষ্ঠ পথচারী বীরগঞ্জে প্রাণি সম্পদ সেবা প্রদর্শণী সমাপনীতে পুরস্কার বিতরণ পীরগঞ্জে ভূমি অধিকার বিষয়ক সমাবেশ বগুড়ায় সিনেমা দেখলে বিরিয়ানি ফ্রি আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করেছি : শেখ হাসিনা যে দোয়া পড়লে আপনার জন্য জান্নাত ফরিয়াদ করবে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশনে ত্রুটি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ ৩১ মে আলোচনায় বসতে পাঠানো হয়েছে চিঠি ফের এফ এ কাপের ফাইনালে ম্যানচেস্টার ডার্বি আরও তিন দিনের ‘হিট অ্যালার্ট’ জারি বীরগঞ্জে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩ টি পদে ১৩ জনের মনোনয়নপত্র দাখিল সারাদেশে ইন্টারনেটের গতি কম ঈদযাত্রায় ৪১৯ দুর্ঘটনায় নিহত ৪৩৮ দাবদাহে পুড়ছে দেশ, ঘরে-বাইরে কোথাও নেই স্বস্তি তাপদাহের মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অ্যাসেম্বলি বন্ধ রাখার নির্দেশ সিসি ক্যামেরার আওতায় আসবে কক্সবাজার ছাতকের জাউয়া বাজারসহ তার আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি পীরগঞ্জে কৃষকলীগের ৫২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত সারাদেশে তিন দিনের হিট অ্যালার্ট জারি এখনই ‘প্রতিশোধে’ যাচ্ছে না ইরান নিজ বাহিনীতে ফিরে গেলেন র‌্যাবের মুখপাত্র মঈন শিশু হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে থার্ড টার্মিনালের দেয়াল ভেঙে ভেতরে বাস, প্রাণ গেল প্রকৌশলীর বীরগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্পের জরাজীর্ণ ব্যারাকের  ঘরের নির্মাণ কাজে জেলা প্রশাসক পরিদর্শন