খুঁজুন
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২ বৈশাখ, ১৪৩১

ইসরাইলের হামলায় পরিবারের ১৭ সদস্য সহ ফিলিস্তিনের শীর্ষ কর্মকর্তা নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: সোমবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২৩, ১২:২১ অপরাহ্ণ
ইসরাইলের হামলায় পরিবারের ১৭ সদস্য সহ ফিলিস্তিনের শীর্ষ কর্মকর্তা নিহত
একের পর এক ইসরাইলের বিমান হামলায় রক্তাক্ত হচ্ছে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড। নিহত হচ্ছে নারী ও শিশুসহ অনেকে। সবশেষ ফিলিস্তিনের এক শীর্ষ কর্মকর্তা এবং তার পরিবারের ১৬ সদস্য নিহত হয়েছে।
নিহত ওই কর্মকর্তার নাম মুহাম্মদ আল-নাজ্জার। দখলদার ইসরাইলি সরকারের করা অপরাধের নথিপত্র ও বিচারের জন্য গঠিত জাতীয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ছিলেন তিনি।সোমবার ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের মিডিয়া অফিস এক বিবৃতিতে এই খবর জানিয়েছে।
এতে বলা হয়, ইসরাইলি বিমান হামলায় ফিলিস্তিনের এক কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। এই হামলায় তার পরিবারের মোট ১৬ সদস্য নিহত হয়েছে।তবে কোন অংশে এই বোমা হামলা চালানো হয়েছে বিবৃতিতে তা উল্লেখ করা হয়নি।
কিন্তু এর আগে আল-জাজিরা আরবিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে খান ইউনিসের একটি বাসভবনে ইসরাইল বিমান হামলা চালিয়েছে।
এর আগে রোববার ফিলিস্তিনের ওয়াফা নিউজ অ্যাজেন্সি সূত্রে মিডল ইস্ট আই এক প্রতিবেদনে জানায়, বিমান হামলা চালিয়ে গাজার ৪৭টি পরিবার নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে ইসরাইল। এই পরিবারগুলোতে মোট পাঁচ শ’ সদস্য ছিল।
আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে ইসরাইলের বিমান হামলায় গাজায় কমপক্ষে দুই হাজার ৩২৯ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন নয় হাজার ৭১৪ জন। নিহতের মধ্যে সাত শতাধিক শিশু ও পাঁচ শতাধিক নারী রয়েছে বলেও জানানো হয়।এখন পর্যন্ত যত ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৬৬ শতাংশই নারী ও শিশু বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।
এ দিকে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, দেশটির পদাতিক বাহিনী গাজায় স্থানীয়ভাবে অভিযান চালিয়েছে। যদিও তারা দাবি করেছে, হামাসের অবকাঠামো লক্ষ্য করে হামলা চালানো হচ্ছে। তবে নির্বিচার এসব হামলায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। অব্যাহত বিমান হামলার মধ্যেই গাজায় স্থল অভিযান চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসরাইল। এর অংশ হিসেবে গাজা সীমান্তের কাছে তিন লাখ সেনা ও অন্যান্য যুদ্ধাস্ত্র জড়ো করেছে তারা।
সম্ভাব্য স্থল অভিযানের আগে, গাজার উত্তরাঞ্চল থেকে ১১ লাখ মানুষকে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে ইসরাইল। তাদের এমন নির্দেশনার পর কয়েক হাজার মানুষ সরে গেলেও, বেশিরভাগ ফিলিস্তিনি তাদের নিজ বাড়িতেই অবস্থান করছেন
ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের এক কর্মকর্তা বলেছেন, আমরা গাজার উত্তরাঞ্চলের এবং গাজা শহরের জনগণকে নিজেদের বাড়িতে থাকতে বলেছি। ইসরাইল বলেছে, শনিবারও তাদের পদাতিক বাহিনী এবং ট্যাংকগুলো, গাজা উপত্যকার অভ্যন্তরে অভিযান চালিয়েছে।
এর আগে ইসরাইল ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলের ১০ লাখের বেশি বাসিন্দাকে ওই অঞ্চল ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়।তবে হামাস জানিয়েছে, ইসরাইলের এমন হুমকিতে ভীত নন ফিলিস্তিনিরা। তারা ইসরাইলের আহ্বানে সাড়া দেয়নি।এ দিকে শুক্রবার লেবাননে ইসরাইলি সেনাবাহিনীর হামলায় ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক ফটোসাংবাদিক নিহত এবং আলজাজিরা, রয়টার্স, এপিসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের বেশ কয়েকজন সাংবাদিক আহত হয়েছে।
উল্লেখ্য, গাজাভিত্তিক ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস ইসরাইলের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করেছে বলে ঘোষণা করে। এরপর পাল্টা হামলা শুরু করেছে ইসরাইল।
সূত্র : আল জাজিরা
উত্তরের কন্ঠ /এ,এস

বৃষ্টির প্রার্থনায় বীরগঞ্জে ‘সালতুল ইস্তিসকার’ নামাজ আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২:৩৭ অপরাহ্ণ
বৃষ্টির প্রার্থনায় বীরগঞ্জে ‘সালতুল ইস্তিসকার’ নামাজ আদায়

সূর্যের আলোর প্রখরতা, তীব্র দাবদাহে মানুষ অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। হয়েছে আবহাওয়ার পালাবদল। তীব্র গরম থেকে মুক্তি পেতে দিনাজপুরের বীরগঞ্জের ভোগনগর ইউনিয়নের রহিম বখস্ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বৃষ্টির আশায় সালাতুল ইস্তেসকার নামাজ ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল ২০২৪) সকাল সাড়ে দশটার সময় ইস্তেসকার নামাজ অনুষ্টিত হয়। বীরগঞ্জ ফাজিল মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ মিরাজ রহমান নামাজে ইমামতি করেন। এতে শতাধীক মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। গত এক মাস আগেও বীরগঞ্জের যেখানে তাপমাত্রা ছিলো ২০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচে। মাস খানেক পরেই সেখানে বেড়ে দাড়িয়েছে ৪৩ এর কোঁঠায়।

তীব্র রোদ আর ভ্যাবসা গরমে অস্থির জন-জীবন। বৃষ্টি না হওয়া স্বস্তির নিশ্বাস নিতে পারছেন না সাধারণ মানুষ। এই গরমে দেখা দিয়েছে খড়তা। বৃষ্টি না হওয়ায় নষ্ট হচ্ছে জমির ফসল। অপর দিকে নষ্ট হচ্ছে গাছের ফল। কিছু অঞ্চলে পানির স্তর নেমে যাওয়ায় টিউবওয়েল থেকে ঠিকমত উঠছে না পানি।

ভোগনগর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান রাজিউর রহমান রাজু বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশে অনাবৃষ্টি ও তীব্র দাবদাহের কারনে জন-জীবন কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে। পশু-পাখী, গাছ-পালা সহ সকলের জন্য অত্যন্ত পানি প্রয়োজন হওয়া আমরা এলাকার যুবকরা মিলে সালাতুর ইস্তেসকার নামাজের আয়োজন করি।’

হাসিনুর ইসলাম বলেন, ‘আমরা এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে খোলা ময়দানে ইস্তেসকার নামাজ আদায় করেছি। অনাবৃষ্টির ফলে তীব্র গরমের কারণে শিশু, বৃদ্ধ, পশুপাখি সকলে কষ্টে জীবনযাপন করছে। রোজাদারদের অনেক কষ্ট হচ্ছে। গরমের কারণে বাচ্চারা পড়ালেখায় মন বসাতে পারছে না। বৃদ্ধরা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।’

হাফেজ মো: জাহেদুল ইসলাম বলেন, ‘রাসূল (সাঃ) অনাবৃষ্টি ও দূর্ভিক্ষের জন্য সাহাবীদের নিয়ে খোলা ময়দানে ইস্তেসকার সালাত আদায় করেছিলেন। নবী রাসূলের সুন্নাত কে আকড়ে ধরার জন্য বর্তমান বাংলাদেশে অনাবৃষ্টি দেখা দিয়েছে। আমরা খোলা মাঠে সালাতুল ইস্তেসকা নামাজ আদায় করেছি।’

সালাতুল ইস্তেসকার নামাজ ও বিশেষ মোনাজাতে উপস্থিত ছিলেন ভোগনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ এলাকার সকল মুসল্লিগণ।

নামাজ শেষে বৃষ্টির আশায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এ সময় মুসল্লিরা কাঁদতে কাঁদতে আল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে বীরগঞ্জ উপজেলাসহ পুরো বাংলাদেশে বৃষ্টি বর্ষণের জন্য দোয়া করেন।

বগুড়ায় বৃষ্টির প্রত্যাশায় ইসতিকার নামাজ আদায়

জেলা প্রতিবেদক, বগুড়া
প্রকাশিত: বুধবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪, ৮:০০ অপরাহ্ণ
বগুড়ায় বৃষ্টির প্রত্যাশায় ইসতিকার নামাজ আদায়

তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন। তীব্র গরমে বৃষ্টি প্রত্যাশা করে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেছেন বগুড়ার সদর উপজেলার গোকুল এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে গোকুল তছলিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে খোলা আকাশের নিচে এ নামাজের আয়োজন করেন স্থানীয় মুসল্লিরা। এতে বিভিন্ন এলাকায় প্রায় শতাধিক মুসল্লি অংশ নেন।

নামাজের ইমামতি করেন গোকুল কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠের খতিব মাওলানা আমিনুর রহমান। নামাজ শেষে বৃষ্টির আশায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এসময় মুসল্লিরা কেঁদে কেঁদে বৃষ্টি প্রত্যাশায় দোয়া করেন। উক্ত ইসতিকার নামাজে উপস্থিত ছিলেন, গোকুল কেন্দ্রীয় মসজিদের ঈমাম তাজুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তারিকুল ইসলাম, মসজিদ সহ সাধারন সম্পাদক জহুরুল ইসলাম, ডাঃ মিটন, রাব্বি ইসলাম, মেহেদী হাসান মিঠু, সৈয়দ শামীম আহমেদ সহ শতাধিক ধর্মপ্রান মুসল্লি।

স্থানীয়রা জানান, বৃষ্টির অভাবে জনজীবন অতিষ্ঠ, খাল-বিল, নদী-নালা শুকিয়ে চৌচির হয়ে গেছে। পানির অভাবে চাষাবাদও মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে মাঠের ফসল। এ কারণেই আল্লাহ তায়ালার দরবারে বৃষ্টি চেয়ে এলাকাবাসী খোলা মাঠে নামাজ আদায় ও দোয়ার আয়োজন করেন।

শেরপুরে প্রচন্ড তাপদাহে কৃষকের মৃত্যু

মোঃ নজরুল ইসলাম জাকি
প্রকাশিত: বুধবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪, ৬:০১ অপরাহ্ণ
শেরপুরে প্রচন্ড তাপদাহে কৃষকের মৃত্যু
বগুড়ার শেরপুরে হিট স্ট্রোকে আব্দুস সালাম (৫৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ওই কৃষক উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের জোড়গাছা গ্রামের মৃত আব্দুস সোবহানের ছেলে।
বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।জানা যায়, আ. সালাম নামের ঐ কৃষক গরুর ঘাস কাটার জন্য মাঠে যায়। প্রচন্ড তাপদাহের ভিতর কাজ করতে করতে হটাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। মাঠে অসুস্থ অবস্থায় পরে থাকতে দেখে পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে মাথায় পানি দিতে থাকে। কিন্তু হাসপাতালে নেওয়ার আগেই কৃষক আ. সালামের মৃত্যু হয়।
এ ব্যাপারে সুঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান জিন্নাহ জানান, প্রচন্ড রোদে ফসলি আবাদে কাজ করার সময় তার মৃত্যু হয়েছে।
"> ">
বৃষ্টির প্রার্থনায় বীরগঞ্জে ‘সালতুল ইস্তিসকার’ নামাজ আদায় বগুড়ায় বৃষ্টির প্রত্যাশায় ইসতিকার নামাজ আদায় শেরপুরে প্রচন্ড তাপদাহে কৃষকের মৃত্যু বগুড়ায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু বোচাগঞ্জে সড়ক নির্মান কাজে ধীরগতি দুর্ঘটনা আর ধুলোবালুতে অতিষ্ঠ পথচারী বীরগঞ্জে প্রাণি সম্পদ সেবা প্রদর্শণী সমাপনীতে পুরস্কার বিতরণ পীরগঞ্জে ভূমি অধিকার বিষয়ক সমাবেশ বগুড়ায় সিনেমা দেখলে বিরিয়ানি ফ্রি আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করেছি : শেখ হাসিনা যে দোয়া পড়লে আপনার জন্য জান্নাত ফরিয়াদ করবে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশনে ত্রুটি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ ৩১ মে আলোচনায় বসতে পাঠানো হয়েছে চিঠি ফের এফ এ কাপের ফাইনালে ম্যানচেস্টার ডার্বি আরও তিন দিনের ‘হিট অ্যালার্ট’ জারি বীরগঞ্জে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩ টি পদে ১৩ জনের মনোনয়নপত্র দাখিল সারাদেশে ইন্টারনেটের গতি কম ঈদযাত্রায় ৪১৯ দুর্ঘটনায় নিহত ৪৩৮ দাবদাহে পুড়ছে দেশ, ঘরে-বাইরে কোথাও নেই স্বস্তি তাপদাহের মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অ্যাসেম্বলি বন্ধ রাখার নির্দেশ সিসি ক্যামেরার আওতায় আসবে কক্সবাজার ছাতকের জাউয়া বাজারসহ তার আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি পীরগঞ্জে কৃষকলীগের ৫২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত সারাদেশে তিন দিনের হিট অ্যালার্ট জারি এখনই ‘প্রতিশোধে’ যাচ্ছে না ইরান নিজ বাহিনীতে ফিরে গেলেন র‌্যাবের মুখপাত্র মঈন শিশু হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে থার্ড টার্মিনালের দেয়াল ভেঙে ভেতরে বাস, প্রাণ গেল প্রকৌশলীর বীরগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্পের জরাজীর্ণ ব্যারাকের  ঘরের নির্মাণ কাজে জেলা প্রশাসক পরিদর্শন কাহারোলে  ছাত্রলীগের ঈদ ও বৈশাখী কনসার্ট অনুষ্ঠিত চুয়াডাঙ্গায় ইঞ্জিন বিকল, ৩ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক